বিলু হত্যা মামলায় ১৩ জনকে মৃত্যুদণ্ড

ঢাকা টেলিগ্রাফ: গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় বিল্লাল হোসেন ওরফে বিলু (৪৫) হত্যা মামলায় ১৩ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতের বিচারক ফজলে এলাহী ভূইয়া এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে সাতজন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। অন্যরা পলাতক। মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি বিচারক প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছেন।

মামলার রায়ে বলা হয়, ১৯৯৫ সালে কালীগঞ্জের ঈশ্বরপুর গ্রামে বিল্লাল হোসেন বিলুকে হত্যা করেন আসামিরা। এ ঘটনায় তার স্ত্রী কালীগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে ১৩ জনের নামে আদালতে অভিযোগপত্র দিলে বিচারক অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করে।

পহেলা বৈশাখে ডিএমপির রোডম্যাপ

পহেলা বৈশাখ উদযাপন নির্বিঘ্ন করতে জনসাধারণের চলাচলের জন্য রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ।

ডিএমপির ঘোষিত রোডম্যাপ অনুযায়ী, সকাল থেকে মৎস্য ভবন-শাহবাগ-কাঁটাবন, বাংলামটর-শাহবাগ-টিএসসি, হাইকোর্ট মোড়-দোয়েল চত্বর-শহীদ মিনার, বকশীবাজার-শহীদ মিনার-টিএসসি চত্বর, শহীদুল্লাহ হল ক্রসিং-দোয়েল চত্বর, নীলক্ষেত-টিএসসি, পল্টন-কদম ফোয়ারা-হাইকোর্ট ক্রসিং ও কাকরাইল-রূপসী বাংলা রোড বন্ধ থাকবে।

তবে মিরপুর রোড-সায়েন্স ল্যাবরেটরি-নিউ মার্কেট-আজিমপুর-বকশীবাজার-চানখার পুল-গুলিস্তান, রাসেল স্কয়ার-সোনারগাঁও-রেইনবো-মগবাজার-মালিবাগ-রাজমনি-ইউবিএল-গুলিস্তান,মহাখালী-সাতরাস্তা-মগবাজার-কাকরাইল-রাজমনি-ইউবিএল-গুলিস্তান, ফার্মগেট-সোনারগাঁও-বাংলামটর-মগবাজার-মৌচাক-মালিবাগ-খিলগাঁও এবং ফার্মগেট-সোনারগাঁও-বাংলামোটর-মগবাজার-কাকরাইল-রাজমনি-পল্টন-মতিঝিল হয়ে যানবাহনসমূহ চলাচল করবে।

চট্টগ্রামে প্রবাসী হত্যায় ৫ জনের ফাঁসি

চট্টগ্রামে প্রবাসী নুরুল আলম হত্যা মামলার পাঁচ আসামিকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। চট্টগ্রামের পঞ্চম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ জান্নাতুল ফেরদৌস এই রায় দেন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তসলিম উদ্দীন এ তথ্য জানিয়েছেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- বাবুল বড়ুয়া, কানন বড়ুয়া জুয়েল, মুনির, সঞ্জিদ বণিক ও মুজিবুর রহমান।
তিনি বলেন, রায় ঘোষণার সময় কানন বড়ুয়া আদালতে উপস্থিত ছিলেন। অন্যরা জামিন নিয়ে পলাতক আছেন।
উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৩০ মে বায়েজিদ বোস্তামী থানার অক্সিজেন মোড়ে প্রবাসী নরুল আলমকে হত্যা করা হয়।

৩২ ধারা নিয়ে সাংবাদিকদের আতঙ্কের কারণ নেই : আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের ৩২ ধারা নিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের কোনো রকম আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। সংসদে এটি উত্থাপিত হয়েছে। এখন আইনের খসড়াটি সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে যাবে। 
মঙ্গলবার জেলা জজ ও সমপর্যায়ের বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
আইনমন্ত্রী বলেন, আদালত হচ্ছে বিচারপ্রার্থী জনগণের সর্বশেষ আশ্রয়স্থল। তারা যাতে স্বল্প খরচে ও স্বল্প সময়ে ন্যায়বিচার লাভ করতে পারে সেদিকে বিচারকদের খেয়াল রাখতে হবে।
তিনি বলেন, সংবিধান ও আইন অনুযায়ী প্রত্যেক বিচারকই স্বাধীন। তবে বিচার করতে গিয়ে কোনো পক্ষ যাতে অবিচারের শিকার না হয় এবং কোনোভাবে যেন অহেতুক হয়রানি ও ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
অনুষ্ঠানে আইন সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হক  উপস্থিত ছিলেন।

বিমান ত্রুটির মামলা থেকে ১১ জনকে অব্যাহতি

প্রধানমন্ত্রীর বিমানে ত্রুটির মামলা থেকে বাংলাদেশ বিমানের সাত কর্মকর্তাসহ ১১ জনকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন করে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের।

বুধবার, ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের পরিদশর্ক মাহবুব অালমের দাখিল করা ফাইনাল রিপোর্টটি গ্রহণ করে ১১ অাসামিকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

একইসঙ্গে দায়িত্বে অবহেলার জন্য বিমানের প্রকৌশলীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে নতুন করে মামলার আদেশ দিয়েছেন আদালত। নতুন মামলায় আসামি হবেন বিমানের প্রকৌশলী নাজমুল হক, টেকনিশিয়ান সিদ্দিকুর রহমান, জুনিয়ার টেকনিশিয়ান শাহ আলম। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তাপস জানান, ‘রাষ্ট্রদ্রোহ ও নাশকতার মামলা থেকে ১১ আসামির সবার অব্যাহতির আবেদন গ্রহণ করে এই তিনজনের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ২৮৭ ধারায় মামলা করতে তদন্ত কর্মকর্তাকে অনুমতি দিয়েছন আদালত’।

অন্যদিকে, বিমানের প্রধান প্রকৌশলী (প্রডাকশন) দেবেশ চৌধুরী, প্রধান প্রকৌশলী (কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স) এসএ সিদ্দিক, প্রধান প্রকৌশলী (মেইনটেন্যান্স অ্যান্ড সিস্টেম কন্ট্রোল) বিল্লাল হোসেন, প্রকৌশল কর্মকর্তা এসএম রোকনুজ্জামান, সামিউল হক, লুৎফর রহমান, মিলন চন্দ্র বিশ্বাস ও জাকির হোসাইনকে এই মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী উড়োজাহাজে যান্ত্রিক ত্রুটির ঘটনায় রাষ্ট্রদ্রোহ ও নাশকতার মামলার সব আসামি জামিনে রয়েছেন। এদের মধ্যে নাজমুল হক হাই কোর্ট থেকে এবং বাকি ১০ জন ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন।

২০১৬ সালের ২৭শে নভেম্বর হাঙ্গেরি যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে তুর্কেমেনিস্তানের রাজধানী আশখাবাতে জরুরি অবতরণ করে। ওই ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি ওই বছরের ১৮ই ডিসেম্বর তদন্ত প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়। এর আগে, ৩০শে নভেম্বর বাংলাদেশ বিমানের ছয় কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। ওই বছরের ২০শে ডিসেম্বর, বাংলাদেশ বিমানের প্রধান প্রকৌশলীসহ ৯ জনকে আসামি করে বাংলাদেশ বিমানের পরিচালক (ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যাটেরিয়েল ম্যানেজমেন্ট) উইং কমান্ডার (অব.) এম এম আসাদুজ্জামান বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(গ) ধারায় করা ওই মামলার এজাহারে বলা হয়, বিভাগীয় তদন্তে এই কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে “পরস্পর যোগসাজশে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে যন্ত্রপাতি নিয়া অবহেলামূলক আচরণ করতঃ অন্তর্ঘাতমূলক কার্যক্রম করার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তবে গেলো বছর ৭ই ডিসেম্বর, ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে জমা দেয়া চূড়ান্ত প্রতিবেদনে আসামিদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে অন্তর্ঘাতমূলক কার্যক্রমের অভিযোগের সত্যতা না পেয়ে সবার অব্যাহতির আবেদন করা হয়।

বিউটি আক্তার ধর্ষণ ও হত্যাকারী পাঁচদিনের রিমান্ড

ঢাকা টেলিগ্রাফ: কিশোরী বিউটি আক্তার ধর্ষণ ও হত্যা মামলার প্রধান আসামি বাবুল মিয়ার পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রবিবার বিকালে হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আসমা বেগম এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বিকেলে তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ ১০দিনের রিমান্ড চাইলে পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন সিনিয়র জুডিশিয়াল। এরআগে আসামি বাবুলকে শায়েস্তাগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করে র‌্যাব।

এ বিষয়ে দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা জানান, বিউটি হত্যাকাণ্ডের আরও কিছু তথ্য উদঘাটনের জন্য আসামি বাবুলকে শুক্রবার আদালতে নেয়া হয়নি। বাবুল মিয়ার কাছ থেকে প্রাথমিকভাবে যে তথ্য পাওয়া গেছে, তা তদন্তের স্বার্থে এখনি বলা যাচ্ছে না। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টায় বাবুলকে সিলেটের বিয়ানীবাজারে তার ফুফুর বাসা থেকে আটক করা হয়।

গত ২১শে জানুয়ারি শায়েস্তাগঞ্জের ব্রাহ্মণডোরা গ্রামের দিনমজুর সায়েদ আলীর মেয়ে বিউটি আক্তারকে (১৪) বাড়ি থেকে অপহরণ করেন বাবুল মিয়া ও তার সহযোগীরা। এরপর এক মাস তাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়। এক মাস নির্যাতনের পর বিউটিকে কৌশলে তার বাড়িতে রেখে পালিয়ে যায় বাবুল। এ ঘটনায় গত ১লা মার্চ বিউটির বাবা সায়েদ আলী বাদী হয়ে বাবুল ও তার মা স্থানীয় ইউপি মেম্বার কলমচানের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে মেয়েকে সায়েদ আলী তার নানার বাড়িতে নিয়ে রাখেন।

এরপর বাবুল ক্ষিপ্ত হয়ে ১৬ই মার্চ বিউটি আক্তারকে উপজেলার গুনিপুর গ্রামের তার নানার বাড়ি থেকে জোর করে তুলে নিয়ে গিয়ে ফের ধর্ষণের পর হত্যা করে তার মরদেহ হাওরে ফেলে দেয়।

বিউটিকে হত্যা ও ধর্ষণের অভিযোগে ১৭ই মার্চ তার বাবা সায়েদ আলী বাদী হয়ে বাবুল মিয়াসহ দু’জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে শায়েস্তাগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

অর্থ পাচারকারীরা রেহাই পাবে না

আইনি সীমাবদ্ধতার কারণে দেশের অর্থ বিভিন্নভাবে পাচার হয়ে যাচ্ছে, মন্তব্য দুদক চেয়ারম্যানের।

বুধবার, দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের এক অনুষ্ঠানে অর্থ প্রতিমন্ত্রীর সামনে পাচারের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, অর্থপাচারের তদন্তকারী চারটি সংস্থা থাকলেও, পাচারকারীরা রেহাই পেয়ে যাচ্ছে।

দুর্নীতি প্রতিরোধ সপ্তাহ উপলক্ষ্যে সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করে দুদক। এতে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সতর্কতামূলক বার্তা প্রচার করে সংস্থাটি।

বিকেলে, দুদকের মিডিয়া এওয়ার্ড অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থ প্রতিমন্ত্রী জানান, কয়েকটি সেক্টরে দুর্নীতি থাকলেও দেশের প্রবৃদ্ধি বাড়ছে।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, অর্থনীতির সূচকে বাংলাদেশের উন্নতি হলেও থামছে না অর্থপাচার। এ সময়, অর্থ পাচারকারীদের যেকোনো উপায়ে আইনের আওতায় আনার হুঁশিয়ারি দেন ইকবাল মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে দুর্নীতি বিরোধী অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য ছয় সাংবাদিকের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

জাতীয়তাবাদী ঐক্য প্যানেলের নিরঙ্কুশ জয়

সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের ২০১৮-১৯ সালের নির্বাচনে বিএনপি ও জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী ঐক্য প্যানেলের নিরঙ্কুশ জয়। সভাপতি পদে টানা দ্বিতীয় বারের মতো জয়ী হয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। আর টানা ষষ্ঠবারের মতো সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন। ২০১৭-১৮ সালের নির্বাচনেরও ১৪ টি পদের মধ্যে সভাপতি ও সম্পাদকসহ আটটি পদে জয়ী হয় জাতীয়তাবাদী ঐক্য প্যানেল।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে সর্বোচ্চ আদালতের আইনজীবীরা সিদ্ধান্ত গ্রহণে ভুল করেনি। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আইনজীবীরা কাজ করতে চায়। কিন্তু সরকার সেটি করতে দিচ্ছে না। সরকার বিচার বিভাগকে কুক্ষিগত করার চেষ্টা করছে। সম্প্রতি সরকার বিচার বিভাগকে যেভাবে দলীয়করণ করছে, এ বিজয় তার প্রতিবাদ। আইনজীবীরা অন্যায়ের জবাব দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট বারের নির্বাচনের মাধ্যমে বলে মনে করেন নবনির্বাচিতরা।

এ বিষয়ে বিএনপি ও জামায়াত সমর্থক প্যানেলের বিপুল বিজয় সম্পার্কে নবনির্বাচিত সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, দেশের মানুষ বিচার বিভাগের স্বাধীনা চায়। সরকার বিচার বিভাগকে কুক্ষিগত করার চেষ্টা করছে। সম্প্রতি সরকার বিচার বিভাগকে যেভাবে দলীয়করণ করছে, এ বিজয় তার প্রতিবাদ।

অন্যদিকে জাতীয়তাবাদী প্যানেলের বিপুল বিজয় সম্পার্কে এই প্যানেলের নমিনেশন বোর্ডের সদস্য সচিব ও সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল বলেন, দেশের মানুষ স্বাধীনভাবে ভোট দেয়ার সুযোগ পেলে বিএনপি বিপুলভাবে জয়ী হবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে সুপ্রিম কোর্ট বারের সদস্যরা সিদ্ধান্ত গ্রহণে ভুল করেনি।

জাতীয়তাবাদী প্যানেলের বিপুল বিজয় সম্পর্কে নবনির্বাচিত সম্পাদক ব্যারিস্টার এএম মাহমুব উদ্দিন খোকন বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আন্তরিকভাবে কাজ করছি। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আইনজীবীরা কাজ করতে চায়। কিন্তু সরকার সেটি করতে দিচ্ছে না। বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করে সরকার ভুল করেছে, অন্যায় করেছে। আইনজীবীরা সে অন্যায়ের জবাব দিয়েছে বারের নির্বাচনের মাধ্যমে।

ব্যারিস্টার খোকন বলেন, আমি অনেক খুশি সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে। সাধারণ আইনজীবীরা আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করায় তাদের প্রতি আমি অনেক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আইনজীবীদের স্বার্থ রক্ষায় সবসময় কাজ করেছি, করছি। সমিতিতে আইনজীবীদের জমানো টাকা আমানত হিসেবে রেখে দিয়েছি, খেয়ানত করিনি।

ব্যারিস্টার খোকন আরো বলেন, আমি সকল দলের, মতের আইনজীবীদের সাড়া পাচ্ছি। দল-মত নির্বিশেষে সকল আইনজীবী আমাকে ভোট দিয়েছেন। সমর্থন দিয়েছেন। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্ট বার একটি পেশাজীবীদের সংগঠন। এখানে পেশাদারিত্ব রক্ষা, আইনজীবীদের স্বার্থ রক্ষা হলো বড় বিষয়। আমি নির্বাচিত হয়ে আইনজীবীদের প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা কয়েক গুণ বৃদ্ধি করেছি। কেউ আমার দ্বারা বঞ্চিত হয়নি। আমি অনিয়মকে প্রশ্রয় দিইনি। যতটুকু পেরেছি, আইনজীবীদের সাথে সমন্বয় করেই কাজ করার চেষ্টা করেছি। এখানে উচ্চ শিক্ষিত লোকেরা উকালতি করতে আসেন। তারা সবকিছু সম্পর্কে ভালো ধারণা রাখেন। তাদের মনোভাব বুঝে রাজনীতি করতে হবে। তাদেরকে ঠকিয়ে এখানে কেউ পার পাবে না।

২০১৮-২০১৯ সেশনের নির্বাচনে ১৪টি পদের মধ্যে ১০টি পদে জয় পেয়েছে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য ‘নীল’ প্যানেল। অপর দিকে সরকার সমর্থক সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের ‘সাদা’ প্যানেল একটি সহ-সম্পাদক ও তিনটি সদস্যসহ চারটি পদে জয়ী হয়েছে।

বালু ভরাট নিয়ে প্রতারণা : ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলা

বালু ভরাট নিয়ে প্রতারণা করার অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ও নোবেল বিজয়ী ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন এক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মালিক।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম সুব্রত ঘোষের আদালতে মামলাটি করেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাজ এন্টারপ্রাইজের মালিক বাহাদুল ইসলাম। আদালত মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য রাজধানীর পল্লবী থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

মামলায় ড. ইউনূস ছাড়াও আরও তিন জনকে এ মামলায় আসামি করা হয়েছে। তারা হলেন- গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল হাসান, গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টের দুই কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম ও আসাদুজ্জামান।

বাদীর আইনজীবী ফেরদৌস আহম্মেদ বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করে বলেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাজ এন্টারপ্রাইজের সঙ্গে বালু ভরাট নিয়ে প্রতারণা পূর্বক বিশ্বাস ভঙ্গ করার অভিযোগে ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে এ মামলাটি করা হয়। আদালত মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পল্লবী থানাকে নির্দেশ দেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাজ এন্টারপ্রাইজ গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টের আশুলিয়ার জিরাবোর ঘোষবাগ এলাকায় বালু ভরাটের কাজ করেন। বালু ভরাট বাবদ গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টের কাছে তার পাওনা ৬ কোটি ৮৫ লাখ ৮৯ হাজার ৪ টাকা। তাজ এন্টারপ্রাইজের মালিক বাহাদুল ইসলাম বালু ভরাটের টাকা দেয়ার জন্য আসামিদের বলেন। তারা টাকা দিতে গড়িমসি করতে থাকেন। সর্বশেষ ১১ ফেব্রুয়ারি তাদের মধ্যে একটি সমঝোতা হয় টাকা দিবেন বলে। বাদী সমঝোতা অনুযায়ী তার টাকা চাইলে আসামিরা হুমকি প্রদান করেন।

খালেদার জামিন স্থগিত ৮ মে পর্যন্ত

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় নিম্ন আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসনকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন আদেশ আগামী ৮ মে পর্যন্ত স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ।

হাইকোর্টের দেয়া জামিন আদেশের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদনের (লিভ টু আপিল) ওপর শুনানি শেষ করে সোমবার এ আদেশ দিলেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ।

আপিলের বিষয়ে গতকাল শুনানি শেষ হওয়ার পর আদেশের জন্য আজকের দিন ধার্য ছিল।

সোমবার আদালত প্রথমে আদেশে বলেছিলেন, ২২ মে পর্যন্ত খালেদার জামিন স্থগিত। সে অনুযায়ী টেলিভিশনগুলো স্ক্রলও দেয়, খবর আসে অনলাইন গণমাধ্যমগুলোতে। কিছুক্ষণ পর আদালত আদেশ ‘মোডিফাই’ করে ৮ মে পর্যন্ত জামিন স্থগিত করেন।

আদালতে আজ খালেদার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার রফিকুল হক, দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম।

২২ মে পর্যন্ত জামিন আদেশ স্থগিতের পাশাপাশি দুই সপ্তাহের মধ্যে উভয়পক্ষকে আপিলের সারসংক্ষেপ জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ মামলার অপর পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

৮ ফেব্রুয়ারি কারাদণ্ডের রায়ের পর থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন- সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারারসন খালেদা জিয়া।

নিম্ন আদালত থেকে ওই মামলার নথি হাইকোর্টে আসার পর তা দেখে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের হাইকোর্ট বেঞ্চ গত ১২ মার্চ খালেদার চার মাসের অন্তবর্তী জামিন মঞ্জুর করেন। সঙ্গে সঙ্গে তার আপিল শুনানির জন্য ওই সময়ের মধ্যে সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখাকে পেপারবুক প্রস্তুত করারও নির্দেশ দেন।

তবে ১৪ মার্চ প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ খালেদা জিয়ার জামিন রোববার (১৮ মার্চ) পর্যন্ত স্থগিত করেন।

এরপর ১৫ মার্চ ওই আদেশের বিরুদ্ধে আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন (লিভ টু আপিল) করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।