এমপি আনার হত্যায় তদন্ত বাধাগ্রস্ত করতে কোনো চাপ নেই- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আগের সংবাদ

বিশ্বব্যাপী রেকর্ড ১২ কোটি মানুষ জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত- জাতিসংঘ

পরের সংবাদ

সিঙ্গাপুরের নতুন প্রেসিডেন্ট থারমান শানমুগারাতনাম

টেলিগ্রাফ ঢাকা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২, ২০২৩ , ২:৩৩ অপরাহ্ণ

সিঙ্গাপুর প্রেসিডেন্ট

সিঙ্গাপুরের নবম প্রেসিডেন্ট হিসাবে নির্বাচিত বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ভারতীয় বংশোদ্ভূত থারমান শানমুগারত্নম পরবর্তী ছয় বছরের জন্য সমৃদ্ধ নগর-রাষ্ট্রের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। তামিল পরিবারে জন্মগ্রহণকারী থারমান ২.৭ মিলিয়নেরও বেশি সিঙ্গাপুরের ভোটারের প্রায় নয় শতাংশ পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। থারমান সিঙ্গাপুরের শিক্ষিত নাগরিকদের একজন যিনি ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে শহরের বিভিন্ন উন্নয়ন পর্যায় প্রত্যক্ষ করেছেন।

৬৬ বছর বয়সী এই অর্থনীতিবিদ, ক্রীড়াবিদ নাগরিকদের উদ্দেশে বলেন, আমি কয়েক দশক ধরে শহরের অবস্থা প্রত্যক্ষ করে আপনাদের সেবা করার অধিকার পেয়েছি – মাটিতে নেমে কাজ করার পাশাপাশি একটি ন্যায্য এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজের জন্য জাতীয় নীতিগুলি গঠন করা এবং আন্তর্জাতিকভাবে সিঙ্গাপুরের পতাকা উড়িয়ে দেওয়া আমার লক্ষ্য।

১ সেপ্টেম্বর প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। থারমান সিঙ্গাপুর ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন (জিআইসি) এর প্রাক্তন প্রধান বিনিয়োগ কর্মকর্তা এনজি কোক সং এবং রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ইউনিয়ন-ভিত্তিক বীমা গোষ্ঠী এনটিইউসি ইনকামের প্রাক্তন প্রধান ট্যান কিন লিয়ানকে বিপুল ব্যবধানে পরাজিত করেছেন। ২০১১ সালের পর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ৭০ শতাংশেরও বেশি ভোট পেয়েছেন থারমান।

১৯৫৭ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি সিঙ্গাপুরে জন্মগ্রহণ করেন থারমান। তাঁর পরিবার দীর্ঘদিন ধরে সিঙ্গাপুরে বসবাস করছে । অধ্যাপক কে. শানমুগারত্নমের তৃতীয় পুত্র থারমান। তাঁর বাবা সিঙ্গাপুরে প্যাথলজির জনক হিসাবে পরিচিত।

তিনি একজন চিকিৎসা বিজ্ঞানী ছিলেন যিনি সিঙ্গাপুরে ক্যান্সার গবেষণা এবং প্যাথলজি সম্পর্কিত বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংস্থার নেতৃত্ব দিয়েছেন। থারমান বিয়ে করেছেন সিঙ্গাপুরের চীনা-জাপানি বংশের আইনজীবী জেন ইউমিকো ইত্তোগিকে, যিনি সক্রিয়ভাবে সিঙ্গাপুরে সামাজিক উদ্যোগ এবং অলাভজনক শিল্প খাতে নিযুক্ত আছেন। এই দম্পতির এক মেয়ে ও তিন ছেলে রয়েছে। লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স থেকে অর্থনীতিতে ব্যাচেলর অফ সায়েন্স ডিগ্রী নিয়ে স্নাতক হওয়ার আগে থারমান অ্যাংলো-চাইনিজ স্কুলে পড়তেন। লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স ২০১১ সালে তাঁকে একটি অনারারি ফেলোশিপ প্রদান করে। পরবর্তীকালে তিনি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের উলফসন কলেজে যান, যেখানে তিনি অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

এরপর তিনি হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির হার্ভার্ড কেনেডি স্কুলে যোগ দেন। যেখানে তিনি পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এমপিএ) ডিগ্রী সম্পন্ন করেন এবং লুসিয়াস এন. লিটাউয়ার ফেলোস অ্যাওয়ার্ড (এমপিএ শিক্ষার্থীদের দেওয়া হয় যারা একাডেমিক বিভাগে দক্ষতা প্রদর্শন করেন) গ্রহণ করেন । পেশায় একজন অর্থনীতিবিদ, থারমান তার কর্মময় জীবন কাটিয়েছেন প্রধানত অর্থনৈতিক ও সামাজিক নীতির সাথে সম্পর্কিত জনসেবার ভূমিকায়। তিনি বিভিন্ন উচ্চ-পর্যায়ের আন্তর্জাতিক কাউন্সিল এবং প্যানেলের নেতৃত্ব দিয়েছেন। থারমান ২০১১ থেকে ১৯ সালের মধ্যে সিঙ্গাপুরের উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এবং ২০১৯ থেকে ২৩ সালের মধ্যে মন্ত্রিসভায় সিনিয়র মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০২৩ সালের জুন মাসে, থারমান প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন এবং সরকারের সমস্ত পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ২০২৩ সালের জুলাই মাসে সিঙ্গাপুরের গভর্নিং পিপলস অ্যাকশন পার্টির (পিএপি) সদস্য হিসাবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন । ১৯৭০ এর দশকে যুক্তরাজ্যে অধ্যয়নরত থারমান মূলত সমাজতান্ত্রিক বিশ্বাসের অধিকারী ছিলেন, কিন্তু অর্থনীতির বিষয়ে তার দৃষ্টিভঙ্গি তার কর্মজীবনের সময় বিকশিত হয়েছে।

১৯৯২ সালে MAS-এর অর্থনীতি বিভাগের পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করার সময়, থারমানকে একটি স্থানীয় সংবাদপত্রে সিঙ্গাপুরের দ্বিতীয়-ত্রৈমাসিকের ফ্ল্যাশ জিডিপি বৃদ্ধির অনুমান প্রকাশের সাথে জড়িত একটি মামলায় অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট (OSA) এর অধীনে অভিযুক্ত করা হয়েছিল। তাঁকে এই মামলায় ১৫০০ সিঙ্গাপুরি ডলার জরিমানা করা হয়। এই সমস্ত কিছুকে পিছনে ফেলে, তিনি সরকারী ক্ষেত্রের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব সামলেছেন। ক্ষমতাসীন পিপলস অ্যাকশন পার্টি (পিএপি) তে যোগদানের পর, ২০০১ সালে একজন রাজনীতিবিদ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেন থারমান।

তিনি ২০০৩ সালে শিক্ষামন্ত্রী হিসাবে মন্ত্রিসভায় নিযুক্ত হন এবং ২০০৮ সাল পর্যন্ত এই ভূমিকা পালন করেন। ২০০৭ থেকে ১৫ সালের মধ্যে অর্থমন্ত্রী, ২০১১ থেকে ১২ সালের মধ্যে জনশক্তি মন্ত্রী এবং ২০১৫ থেকে ২৩ সালের মধ্যে সামাজিক নীতিগুলির সমন্বয়কারী মন্ত্রীর ভূমিকা পালন করেছেন।

এছাড়াও ২০১১ এবং ২০২৩ সালের মধ্যে সিঙ্গাপুরের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের চেয়ারম্যান এবং ২০১৯ থেকে ২৩ সালের মধ্যে সিঙ্গাপুর সরকারের ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন (GIC) এর ডেপুটি চেয়ারম্যান পদের দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। থারমান একজন সংসদ সদস্য ছিলেন যিনি ২০০১ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে জুরং জিআরসির তামান জুরং বিভাগের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন PAP-এর সদস্য হিসাবে। ২০০৬, ২০১১, ২০১৫ এবং ২০২০ সালের সাধারণ নির্বাচনে তিনি চারবার সংসদে পুনর্নির্বাচিত হন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন উচ্চ-পর্যায়ের আন্তর্জাতিক কাউন্সিল এবং প্যানেলের নেতৃত্ব দিয়েছেন।

তিনি ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) বোর্ড অফ ট্রাস্টিজের সদস্য এবং জাতিসংঘ মহাসচিবের উচ্চ-স্তরের উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্যও ছিলেন। ২০১১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত, তিনি ইন্টারন্যাশনাল মনিটারি অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল কমিটি (IMFC), ইন্টারন্যাশনাল মনিটারি ফান্ড (IMF) এর নীতি উপদেষ্টা কমিটিতে সভাপতিত্ব করেন । ২০১৯ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত, তিনি জাতিসংঘের উন্নয়ন কর্মসূচি (UNDP) এর মানব উন্নয়ন বিভাগের (HDR) উপদেষ্টা বোর্ডের সহ-সভাপতি ছিলেন। যৌবনে একজন সক্রিয় ক্রীড়াবিদ, থারম্যান খেলাধুলাকে জীবনের অঙ্গ হিসেবে তুলে ধরেছেন। তিনি শিক্ষার একটি রূপ হিসাবে খেলাধুলা সম্পর্কে বলেছিলেন, “শিশুরা খেলাধুলার মাধ্যমে মূল্যবোধ শেখে। তারা অনুশীলনের মাধ্যমে শৃঙ্খলা শেখে। প্রতিযোগিতায় হার-জিত শিশুকে নম্রতা শেখায় । তিনি ২০০২ সাল থেকে চীনা ক্যালিগ্রাফিতে নিযুক্ত আছেন।

থারমান বেসরকারী সংস্থাগুলিতেও কাজ করেছেন এবং সিঙ্গাপুর ইন্ডিয়ান ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (SINDA) এর ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতিত্ব করেছেন। কোভিড-১৯ মহামারীর সময়ে সিঙ্গাপুরবাসীদের দক্ষতা ও চাকরি পুনর্নির্মাণের লক্ষ্যে ওং টেং চেয়ং লেবার লিডারশিপ ইনস্টিটিউট এবং ন্যাশনাল জবস কাউন্সিলের সভাপতিত্ব করেন। তিনি আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মে একাধিক পুরস্কার এবং প্রশংসা অর্জন করেছেন। তামিল বংশোদ্ভূত সিঙ্গাপুরের রাজনীতিবিদ এস আর নাথান নামে পরিচিত সেলাপান রামানাথন ২০০৯ সাল থেকে সিঙ্গাপুরের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং মালয়ালি-অরিজিন চেঙ্গারা ভিটিল দেবান নায়ার, যিনি দেবান নায়ার নামেই বেশি পরিচিত, তিনি ১৯৮১ সাল থেকে সিঙ্গাপুরের তৃতীয় রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সূত্র : খালিজ টাইমস

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ঢাকা টেলিগ্রাফ এর দায়ভার নেবে না।